‘রবীন্দ্রনাথের জন্য ছুটি দেবই সাফ কথা মমতার’ —— আনন্দবাজার পত্রিকা

By Biplab Das

গত ৩১ জুলাই আনন্দবাজার পত্রিকার “রবীন্দ্রনাথের জন্য ছুটি দেবই সাফ কথা মমতার” পড়ে কয়েকটি কথা ব্যক্ত করতে চাইছি। কথাগুলি বলার কারন এই যে, যখন পশ্চিমবঙ্গের প্রায় বেশীরভাগ সংবেদনশীল সাধারন মানুষ মমতা সরকারের প্রশাসনিক তৎপরতাকে প্রশংসার সাথে মেনে নিচ্ছে, সেই সময় এই হঠাৎ পদক্ষেপ রাজধানীর গতিতে ব্রেক কষা হল না কী? তার সাথে দূষ্টু সাংবাদিকদের প্রশ্নের খোঁচায় তিনি যখন জোর করে বলেন, “রবীন্দ্রনাথের জন্য ছুটি দিতে হলে বার বার দেবেন”- সেটি মমতার স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গির সাথে খাপ খেলেও খাপ খায় না প্রশাসনিক এমার্জেন্সির কর্মতৎপরতার সাথে। মমতাদেবী ভুলে যাবেন না, বাম জমানার গয়ংগচ্ছ ঢিলেঢালা ভঙ্গিমা ছেড়ে সরকারি কর্মচারিরা  আপনারই দেওয়া ছূটি বাতিলের সার্কুলেশনকে সাদরে মেনে নিয়েছে, তাদের এতদিনের ফাঁকিবাজির অভ্যাস কষ্ট করে নষ্ট করেছে আপনার পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি এবং কাজ করার তাগিদের জন্য। তারা এই রবীন্দ্র বাড়াবাড়িকে কী চোখে দেখছে একবারও ভেবে দেখেছেন? কেন্দ্রিয় এবং রাজ্য সরকার গত দেড় বছর ধরে যেভাবে সার্ধ শতবর্ষের নামে লেবু কচলে তেতো করছেন তাতে আমজনতার রবীন্দ্রপ্রীতি কতটা বাড়ছে বলা শক্ত তবে রবীন্দ্রনাথ যে গান্ধীজি, আম্বেদকর, সর্বপল্লী রাধাকৃ্ষ্ণণের মত রবীন্দ্রআদর্শ বিহীন মনীষিতে পরিনত হতে যাচ্ছেন তা নিশ্চিত। কংগ্রেসের টপ টু বটম কোন নেতা টি গান্ধির অহিংস নীতিতে বিশ্বাস করে বলুন তো? তারা সবাই ভোটে জেতে পেশীশক্তির জোরে, আদিবাসীদের জল-জঙ্গল-জমি দখল করে সেনা নামিয়ে। আম্বেদকর সংরক্ষণ নীতি এমন ভাবে শুরু করেছিলেন যাতে দু তিন দশকের মধ্যে দলিত শ্রেণিরা সমাজের ওপরের দিকে উঠে আসতে পারে। তার মতামত কে জলাঞ্জলি দিয়ে প্রতিটি রাজনৈতিক দল সংরক্ষণ নিয়ে ভোট ভোট খেলা খেলছে। প্রতি বছর ঘটা করে শিক্ষক দিবস পালন করেও পেশাগত ভাবে অবনমনের তালিকায় শিক্ষকের স্থান আজ দু নম্বরে, ডাক্তারের পরেই। মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী ভেবে দেখা উচিৎ, প্রায় প্রতিটি মনীষীরই এরকম অবস্থা, তারা এক বলে গেছেন, করি আমরা উলটো। এটাই আমাদের রেওয়াজ, এটাই আমাদের সংস্কৃতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা হলাম বিশ্ব আঁতেল। রবীন্দ্রনাথের গান গাই, পদ্য বলি ঘাড় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে, চোখ বেঁকিয়ে বেঁকিয়ে। আসলে আমরা মুখস্ত বলি। আত্তীকরন করিনা। করলে এত অপকর্ম আমাদের দ্বারা হত না।

এই পরিবর্তনের সময়ে আপনি যদি ভাবতেন যে, রবি ঠাকুর বলে গেছেন- “সমবায় প্রনালীতে জীবিকানির্বাহই আমাদের দেশকে দারিদ্র্য বাঁচাবার একমাত্র উপায়…………শুধু আমাদের দেশ কেন পৃ্থিবীর সকল দেশেই এই প্রনালী একদিন বড় হইয়া উঠিবে”। তাহলে এক কাজ করা যাক, রবি ঠাকুরের সমবায় চিন্তার যে যে দিকগুলি একবিংশ শতাব্দীতেও প্রযোজ্য সেগুলি প্রয়োগ করে কোটরে ঢুকে যাওয়া কুটির শিল্প এবং সমবায় দপ্তর কে ঢেলে সাজাই। রবি ঠাকুর যেহেতু বলেছেন “ ধনের পুজা প্রবল হয়ে উঠেছে………ধনলোভের মত এমন নিষ্ঠুর এবং অন্যায়পরায়ণ প্রবৃত্তি আর নেই”। তাহলে সামনের মরসুমে পাঠশালা থেকেই তার এরকম কোটেশন গুলি ছাত্রছাত্রীদের মনে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করি। বিশ্বকবির বিখ্যাত ‘রাজর্ষি’ কে সম্মান দিয়ে অন্তত ধর্মের নামে নির্বিচারে হাজার হাজার পশুবলি বন্ধ করা যেত। কিছু না পারলেও বাঁকুড়া জেলার যে কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছোট ছোট শিশুদের সামনে মনসা পুজো উপলক্ষ্যে ঝপাঝপ বলি হতে থাকে সেই বীভৎসতা বন্ধ করার প্রজেক্ট নেওয়া যেত। জানেন কি হাজার প্রতিবাদ সত্বেও ঐ বিদ্যালয়গুলির কমিটি এবছরও পয়লা ভাদ্র পশুবলি করব বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আপনার জানার কথা কেননা প্রশাসন কে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে তার কপি আপনাকেও দেওয়া হয়েছে। জানিনা কচি মন গুলির চোখের সামনে যখন রক্ত-লীলার হোলি হবে তখন আপনি রবি ঠাকুর নিয়ে কি প্ল্যান করবেন। রবীন্দ্রনাথের দাও ফিরে সে অরণ্য লও এ নগর কে স্লোগান করে আগামী পাঁচ বছরের বৃক্ষ রোপনের একটা লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা যেত না কী? বাম জমানায় শুয়ে যাওয়া শিক্ষা ব্যবস্থা কে রবি ভাবনায় শিক্ষিত করার প্রজেক্ট নেওয়া যায় নিশ্চয়?

রবীন্দ্রনাথ কেন যে কোনো মনীষী কেই সম্মান জানানো যায় তার চিন্তা, তার আদর্শ, তার স্বপ্নকে পূর্ণ করার মাধ্যমে। তাকে নিয়ে হাজার নাচানাচি বা আঁতলামোর মাধ্যমে নয়।

If you found this article interesting, please copy the code below to your website.
x 
Share

12 Responses to “‘রবীন্দ্রনাথের জন্য ছুটি দেবই সাফ কথা মমতার’ —— আনন্দবাজার পত্রিকা”

  1. Anindyasundar 7 August 2011 at 5:38 AM #

    বিপ্লবকে ধন্যবাদ এমন একটি অসাধারন ও সময়োপযোগী লেখার জন্য। ইংরেজীতে একটি কথা প্রচলিত আছে- “Work is worship.” অর্থাৎ কাজই হল শ্রদ্ধা প্রকাশের প্রকৃষ্ট উপায়। তা না করে এমন সস্তা ও সহজ ‘শ্রদ্ধা’ নিবেদনের মহোৎসব দেখলে ক্ষোভ হয়। ‘শ্রদ্ধা’ জানানোর খরচ হিসেবে কোটি কোটি টাকা উড়ে যাচ্ছে! এই টাকায় কত সমবায় যে গড়ে তোলা যেত। কত দরিদ্র মানুষের অবস্থার উন্নতি হত। রবীন্দ্রনাথের-ই দেখানো পথে।

  2. সুশান্ত কর 7 August 2011 at 9:49 AM #

    বাহ! দারুণ লিখেছেন! সব কথার সঙ্গে সহমত! বিশেষ করে এটাঃরবীন্দ্রনাথ যে গান্ধীজি, আম্বেদকর, সর্বপল্লী রাধাকৃ্ষ্ণণের মত রবীন্দ্রআদর্শ বিহীন মনীষিতে পরিনত হতে যাচ্ছেন তা নিশ্চিত।

  3. sujoy chanda 8 August 2011 at 7:04 PM #

    very excellent

  4. Gablu 8 August 2011 at 7:09 PM #

    I agree with SRAI.

  5. sukhamoy 8 August 2011 at 10:09 PM #

    satty Biplab da apurba chintadharar ak ananya lekha.
    abar samay aseche mananiya mukhyamantrir kichu kore dekhanor.

  6. Anupam 9 August 2011 at 12:40 PM #

    Excellent Biplob….. I am agree with you.

  7. kallol 9 August 2011 at 5:00 PM #

    Biplab sathik kathai bolechen. Manishira amadher agie jabar jonya je katha bole gachen, jibane seta proyog korte parle tabei tader proti samman janano habe. seta na kore bochor-bochor tader samran karar na-may pujo kara cholche. Poshubalir sangey bahu manusher bhul abeg jari-e achey. Yuktibadi/Manabatabadi-rai pa-re ei manush guloke sathik disha dakhate. Vote babura kobe manushke agie nie galo ?

  8. billubhai 9 August 2011 at 10:16 PM #

    eta rabindranather sardho-shotoborso palon kora hocche naki shraddho-shotoborso? amar to mone hoi ei 2011 thekei rabindra vabna ke kobor deoa holo sathe sathe rabindra hujug keo.

  9. billubhai 9 August 2011 at 10:22 PM #

    ২২ শ্রাবন মমতার হুইপে তার দলের চামচারা এবং তল্পি বাহক সরকারি কর্মচারিরা যেভাবে রবীন্দ্রনাথে মাতল এবং গত দেড় বছর ধরে সরকারি উদ্যোগে যেভাবে রবীন্দ্র হুজুগ তৈরি করা হয়েছে তাতে সার্ধ-শতবর্ষ মনে না হয়ে শ্রাদ্ধ-শতবর্ষ মনে হচ্ছে। আমার এও মনে হয় যে ২০১১ সাল থেকেই রবীন্দ্র ভাবনা এবং রবীন্দ্র হুজুগের অবনমন শুরু হয়ে গেল।

  10. Profile photo of Sumitra Padmanabhan
    HUMANISTS' ASSOCIATION 10 August 2011 at 11:15 AM #

    We salute Biplab for voicing our combined sentiment in a very strong and appropriate manner. When shall our leaders come out of this tokenism? People must change their outlook and attitude towards great men. But sadly we see the majority worshipping great thinkers– instead of learning from their ideas.
    The reason behind this — is probably lack of education mixed with deep religious sentiments, that results in this kind of ‘hero-worship’. And all political leaders encash this sentiment. They would not mind even if their own ‘cut-outs’ are worshipped similarly with ‘dhoop-dhuno’!

  11. pronay 10 August 2011 at 8:56 PM #

    I Agree with SRAI.

  12. mrinal 15 August 2011 at 12:08 PM #

    this must be treated as urgent matter. thanks to biplab das to make us think about this.


Leave a Reply